CH Ad

Thursday, April 25, 2013

গোপন অভিসার - একটি মা ও ছেলের কাহিনী


আমরা টেক্সট ফরম্যাটে গল্প দেয়ার জন্য দুঃখিত, যারা পড়তে পারবেন না তাদের কাছে আগেই জানিয়ে রাখছি। আরও দুঃখিত গল্পগুলো চটি হেভেনের স্পেশাল ফরম্যাটে না দিতে পারার জন্য। খুব শিগগিরই গল্পগুলো এডিট করে চটি হেভেন ফরম্যাটে আপনাদের কাছে উপস্থাপন করবো। এই অসঙ্গতির জন্য আন্তরিক ভাবে দুঃখিত।




গোপন অভিসার - একটি মা ও ছেলের কাহিনী




প্রথম পর্ব

ঘটনাটা আমার ছেলে অর্ণব কে নিয়ে, আমার একমাত্র ছেলে অর্ণব, ডাক নাম বাবু..| গত ২ বছর ধরে ওর সাথে এমন এক ঘটনায় আমি জরিয়ে পরেছি, যার সাক্ষী কেবল আমরা মা ও ছেলে| বাবু আর আমি|
সত্যি কথা বলতে কি, আমার মতো একজন উচ্চ মধ্যবিত্ত সাধারণ নারীর জীবনে যে এমন ঘটনা ঘটে যেতে পারে...তা আমি সপ্নেও কল্পনা করতে পারিনি| আজ সেই কাহিনীই শোনাবো ...
আমার নাম অপরাজিতা বসু, ডাক নাম রীতা| থাকি মধ্য কলকাতার এক উন্নয়নশীল অঞ্চলে| উন্নয়নশীল বললাম তার কারণ.... আধুনিক কলকাতার সব সুযোগ সুবিধা একেবারে হাতের কাছে না হলেও...এক দুই পা এগোলেই তা পাওয়া যায়...| সংসারে কেবল আমরা ৩ জন| আমি, বাবু আর আমার স্বামী| স্বামী সরকারী অফিসার ..খুব বড় দায়িত্বে রয়েছে, তাই ওর বেশির ভাগ সময় কাটে অফিসে...কিন্তু তা বলে যে ও বাড়িতে ছেলে, বৌকে সময় দেয় না তা নয়..এমনকি.. বিয়ের এত বছর পরেও, এখনো প্রতি উইকেন্ডে আমরা সবাই একসাথে কলকাতার বড় বড় মল গুলোতে শপিং করতে যাই...তারপর সিনেমা দেখে, বাইরে ডিনার করে ঘরে ফিরি| আমার বয়স ৩৭ আর স্বামীর ৪২| দুজনের শরীরেই যৌবন এখনো বর্তমান| শরীরের খিদে দুজনেরই রয়েছে একে অপরের প্রতি| আমার হাইট ৫’৪, সামান্য মেদ যুক্ত শরীরে 34c সাইজের
খাড়া খাড়া স্তন দুটো, তানপুরার মতো ভারী মাংসল পাছা, পাছার সামান্য উপর অব্দি ঘন কালো চুল আর দুধে আলতা গায়ের রং দেখে আমার স্বামী এখনো সামলাতে পারে না নিজেকে| সত্যি কথা বলতে কি, নিজের শরীর নিয়ে আমার বেশ একটু অহংকারী ভাব আছে.. আর থাকাটাই স্বাভাবিক| আমার স্বামী বিয়ের এত বছর পরেও ..রোজ রাতে আমায় বিছানায় না পেলে ঘুমাতেই পারে না| আর উইকেন্ডের কথা তো বলারই নেই কিছু| কম করে ৩ থেকে ৪ বার ..বিভিন্ন রকম আসনে আমায় না করলে তার ঘুম আসে না|
মোটের উপর বেশ সুখী সংসার আমার... স্বামী ভালো রোজগার করে, আমায় শারীরিক এবং মানসিক সব দিক দিয়ে সুখে রেখেছে..ছেলে কলেজে পরে..প্রতি বছর ভালো রেজাল্ট করে ... এর চেয়ে বেশি সুখ একটা নারীর পক্ষে আর কি হতে পারে!
কিন্তু ঘটনাটা ঘটে গেলো ঝরের মতনই| আমি নিজেও মা হয়েও বাধা দিতে পারিনি, অবশ্য এখন ভাবি..যা হয়েছে ভালই তো হয়েছে...নইলে তো আজ আমি এই সুখের দিনগুলিকে ... না থাক! গোড়া থেকে বলি...
সেদিন ছিলো শনিবার অর্থাৎ উইকেন্ড| প্রতিবারের মতো এই উইকেন্ডেও আমরা ৩ জন শপিং করতে এসেছিলাম কলকাতার এক নামকরা মলে| অনেক্ষণ ধরে শপিং করছিলাম, এটা ওটা কিনছিলাম, দেখছিলাম..এমন সময় আমার স্বামীর মোবাইল বেজে উঠলো... কিচুক্খুন কথা বলার পর ও জানালো .. ওর অফিসে কি একটা জরুরি কাজ এসে পরেছে.. ওকে এখুনি বেরিয়ে যেতে হবে|
আমি বললাম, ঠিক আছে অসুবিধার তো কিছু নেই...তুমি গাড়িটা নিয়ে বেরিয়ে যাও..আমি আর বাবু বরং ধীরে সুস্থে শপিং সেরে, কোনো ট্যাক্সি ধরে বাড়ি ফিরবো| বাবু ও রাজি এই প্রস্তাবে...বললো “হ্যা বাবা, তুমি কোনো চিন্তা করো না...আমি আর মা চলে যেতে পারবো|
ওর বাবা নিশ্চিন্ত হয়ে চলে গেলো তখনি গাড়িটা নিয়ে আর আমি ও বাবু অনেকখান ধরে শপিং করলাম, এটা ওটা কিনলাম.. তারপর বেশ রাত করে বেরোলাম শপিং মল থেকে, বাবু টাক্সি ভাড়া করতে টাক্সি স্টান্ডে চলে গেলো..আর আমি দাড়িয়ে দাড়িয়ে অপেক্ষা করতে লাগলাম ওর জন্য|
বেশ্ কিছু সময় পর, বাবুকে দেখি মুখ কালো করে ফিরে আসছে, কাছে আসতে জিজ্ঞাসা করলাম...
কি রে কি হয়েছে.. ট্যাক্সি পাসনি?
আর বলনা মা... আজ কি একটা গন্ডগোল হয়েছে...ট্যাক্সি স্টান্ডে গিয়ে শুনি আজ ট্যাক্সি ধর্মঘট| একটাও ট্যাক্সি যেতে রাজি হলো না| কি বিপদে পরা গেলো বলত.. এ জানলে তো বাবাকে গাড়িটা রেখে যেতে বলতাম!
“সে কি! কি হবে তাহলে এখন! বাড়ি যাবো কি করে...তাছাড়া রাত ও তো কম হয়নি...”, আমি হাতঘড়ির দিকে তাকিয়ে দেখলাম ১০ টা বেজে গিয়েছে|
বাবু বললো, “অসুবিধা কিছুই নেই.. বাস তো রয়েছে... কিন্তু বসে খুব ভির হবে ট্যাক্সি বন্ধ বলে..তোমার তো অভ্যাস নেই, তাই বেশ অসুবিধা হবে.. তার উপর সাথে আবার এত মাল পত্র|
“কিন্তু কি আর করা যাবে বল...বাড়িতে তো পৌঁছাতেই হবে.. এরপর রাত বেশি বাড়লে.. বাসও পাওয়া যাবে না হয়তো, তুই বাবা তারাতারি বাস স্টান্ডের দিকেই চল..আর দেরি না করে.. একদিন কষ্ট হবে না হয়|”
বাবু আর কথা না বাড়িয়ে হাটা শুরু করলো বাস স্ট্যান্ডে দিকে| কিছুক্ষণপর বেশ কষ্ট করে... ঠেলাঠেলি করে..একটা ভির বসে আমরা মা ছেলেতে উঠে পরলাম....ভেতরে একেবারে দম বন্ধ করা অবস্থা| আমি কোনরকমে ঠেলাঠেলি করে বাসের একদম সামনের দিকে গিয়ে দেওয়াল ধরে দাড়ালাম আর বাবু আমার পেছনে দাড়ালো দু হাতে মাল পত্র নিয়ে|
বাস চলতে না চলতেই ভির যেন আরো বেড়েই চললো.. পিছন থেকে অনবরত ধাক্কা আসতে লাগলো... আর বাবুর দুই হাতে ব্যাগ থাকে..ও ব্যালান্স রাখতে পারছিলো না.. বার বার আমার উপর হুমড়ি খেয়ে পরছিলো...কিন্তু তবুও যতটা সম্ভব জায়গা রাখার চেষ্টা করতে লাগলো.. আমাদের মধ্যে.. শেসে আর না পেরে.. ও ওর পিছনে দাড়িয়ে থাকা লোকদের সাথে ঝগরা শুরু করলো.. ঝগরা ও কথা কাটাকাটি ক্রমশ বেড়ে উঠছে দেখে..আমি বাবু কে থামতে বললাম একসময়..
“বাবু..কি হচ্ছে টা কি.. কেন মুখ খারাপ করছিস এদের সাথে.. তুই আরো সরে এসে দারা আমার কাছে..”
কোনো উপায় না পেয়ে...বাবুও তাই করলো.. আমার শরীরের সাথে একদম সেটে দাড়ালো কোনো রকমে...
কিন্তু বাস কিচুক্খুন চলার পরেই আমি বুঝে গেলাম কাজ টা ঠিক হয়নি... কারণ বেশ লজ্জায় পরে গিয়েছি এখন.. স্পস্ট বুঝতে পারছি..আমার ছেলের যৌনাঙ্গ টা ধীরে ধীরে শক্ত হয়ে আসছে..আমার পাছা ও পিঠের সাথে এভাবে চেপে দাড়ানোর ফলে.. আর বাসের ব্রেক কষার সাথে সাথে ওর পুরুষালী আধা শক্ত লিঙ্গটা আমার পাছার খাজে ঘসা খাচ্ছে অনবরত...
লজ্জায় আমার ফর্সা দুই গাল ..চোখ মুখ লাল হয়ে উঠলো.. বুঝতে পারছি যে বাবু নিজে ইচ্ছাকৃত ভাবে এমনটা করছে না.. ওর বয়সী যেকোনো ছেলের পক্ষেই এইরকম পরিস্থিতিতে.. নিজেকে সামলানো বেশ কষ্টকর.. কিন্তু তবুও আমার খুব লজ্জা লাগতে লাগলো...মনের ভেতর উল্টো পাল্টা চিন্তা আসতে লাগলো.. বাবু কি তাহলে জাঙ্গিয়া পরে বেরয় না বাইরে.. নইলে ওর লিঙ্গটা ঐভাবে চাপ দিচ্ছে কিভাবে আমার পাছায় একেবারে খাড়া ভাবে.. যতই অন্য চিন্তা করার চেষ্টা করলাম..কিন্তু এ থেকে মনকে সরাতে পারলাম না|
এমন সময় বাস টা খুব জোরে একবার ব্রেক কষলো..আর বাবু একদম হুমড়ি খেয়ে আমার পিঠের উপর পরলো.. ওর ঠাটানো লিঙ্গ টা .. আমার সিন্থেটিক সারি আর ভেতরের প্যান্টি সমেত ভেদ করে পাছার খাজের ভেতর অনেকটা ঢুকে গেলো...আর আমার পায়ু ছিদ্রের উপর বেশ জোরে গুতো মারলো...এরকম আচমকা আক্রমনে.. আমি বেশ অসস্থিতে পরে গেলাম.. আর মুখ দিয়ে নিজের অজান্তেই “উহ্হহহহহহহ” বেরিয়ে গেলো আস্তে করে..
বাবুও বেশ অপ্রস্তুত হয়ে পরেছে বুঝতে পারলাম.. হ্যাচর প্যাচর করে সাথে সাথে পেছনে সরার চেষ্টা করতে লাগলো..কিন্তু পিছনে জায়গা না থাকায় সরতে পারলো না.. ওই একভাবে ওর ঠাটানো মোটা হয়ে ওঠা লিঙ্গ টা আমার.. পায়ু ছিদ্রের উপর চেপে...পাছার খাজে আটকে রইলো পুরো রাস্তা... আর চোখে তাকিয়ে দেখলাম.. ওরও মুখ চোখ লাল হয়ে গিয়েছে.. কেমন ঘোরলাগা দৃষ্টি.. সমানে ঘামছে ছেলেটা... কিন্তু আমার নিজেরও কিছু করার ছিলো না এই ভির বাসে ..চুপচাপ..সামনের দিকে..দেওয়ালে দু হাত রেখে দাড়িয়ে রইলাম.. আর নিজের ছেলের যৌনাঙ্গের ঘসা খেতে লাগলাম..পায়ু ছিদ্রের উপর... পুরোটা রাস্তা এমন চললো..প্প্রায় ১ ঘন্টা ধরে... শেসে.. একসময় আমাদের স্টপেজ এসে গেলো..আর আমরা নেমে পরলাম.. বাস থেকে নেমে বাবু আমার সাথে একটাও কথা বললো না.. বরং একটু আগে আগে এগিয়ে বাড়ির দিকে চললো.. আর আমিও ওর পিছন পিছন মাথা নিচু করে..আস্তে লাগলাম..সমস্ত রাস্তার কথাটা ভাবতে ভাবতে|



দ্বিতীয় পর্ব
ঘরে ফিরে দেখলাম স্বামী আমাদের অনেকখান আগেই ফিরে এসেছে. সেদিন রাতে ছেলের সাথে আমি আর কোনো কথা বললাম না.. বাবুও আমায় এড়িয়ে চললো, নিজে নিয়ে খেলো...তারপর নিজের ঘরে গিয়ে শুয়ে পরলো. কিন্তু একটু আগে ঘটে যাওয়া ঘটনা টা ..আমার মনে গভীর এক ছাপ ফেলে গেলো... রাতে স্বামীর পাশে শুয়ে শুয়ে বার বার.. ওই ঘটনার কথা মাথায় আসছিলো.. আর সবচাইতে আশ্চর্যের ব্যপার...স্বামী যখন আমায় ওই রাতে বিছানায় পেয়ে আদর করছিলো...আমি কিন্তু তখন বাসের ওই ঘটনাটার কথা চিন্তা করে মনে মনে উত্তেজিত হচ্ছিলাম! কিন্তু এটা কি করে সম্ভব! বাবু আমার নিজের সন্তান...আজ যেটা হয়েছে সেটা দুর্ঘটনাবশত... কিন্তু একজন মা কি এইরকম একটা ঘটনায় শারীরিক ভাবে উত্তেজিত হতে পারে..? এটা ভাবাও তো পাপ!
পরেরদিন সকালে... মনে মনে ধারণা করে নিলাম যে..যা হয়েছে সেটা নিছকই একটা ঘটনা.. পরিস্থিতির চাপে এরকম হয়ে গিয়েছে.. তবে একটা জিনিস বেশ বুঝতে পেরেছিলাম.. আগের দিন বাসে আমার ছেলের যৌনাঙ্গের ঘসা খেয়ে..আমি সামান্য হলেও উত্তেজিত হয়েছিলাম ওই সময়... আর এটা বার বার মনে পরে বেশ লজ্জা পাচ্ছিলাম সকাল থেকে, এমনকি বাবুর সাথেও সেভাবে সহজ হয়ে কথা বলতে পারলাম না. আর বাবুর ভেতরেও লক্ষ্য করলাম বেশ পরিবর্তন এসেছে হঠাৎ করে..আমার দিকে কেমন চুপচাপ তাকিয়ে থাকে মাঝে মাঝে...আমার পা থেকে মাথার চুল অব্দি নিজের চোখ দিয়ে মাপে...আর আমার চোখে ওর চোখ পরে গেলেই..সাথে সাথে মুখ নামিয়ে নেয়...তবে একটা মোক্ষম জিনিস আবিষ্কার করলাম ..দুপুর বেলায়...
স্নান করার আগে আমি বাড়ির সবার জামাকাপড় কাচি .. সেদিন বাবুর কালো রঙের একটা জকি কাচতে গিয়ে লক্ষ্য করলাম..জকির ঠিক মাঝখানটায়.. যেখানে পুরুষদের যৌনাঙ্গ থাকে..সেখানটায় বেশ কিছুটা সাদাটে দাগ লেগে রয়েছে.. আঙ্গুল দিয়ে ঘসতে.. কেমন শক্ত শক্ত লাগলো জায়গাটা.. আঙ্গুলে একটু জল নিয়ে জায়গাতেই ঘসতেই..কেমন পিচ্ছিল হয়ে গেলো..জকি টা.. নাকের কাছে নিয়ে একটু শুকেই বুঝে গেলাম ওটা কি.. আর সাথে সাথেই খুব অবাক হয়ে গেলাম.. বাবু..! আমার নিজের ছেলে.. কাল রাতে ওই ঘটনার পর.. হস্ত মৈথুন করেছে ওর নিজের মাকে শারীরিক ভাবে কল্পনা করে..!
কিন্তু অবাক হওয়ার সাথে সাথে শরীরে সামান্য উত্তেজনাও হচ্ছিলো...যদিও জানি এটা পাপ ..তবুও মনে মনে ভাবছিলাম.. এটা বেশ অন্য রকম একটা আনন্দ ...নতুন ধরনের রোমান্স একটা..নিজের পেটের সন্তানের সাথে নিজেকে শারীরিক ভাবে কল্পনা করা..বেশ একটা অন্যরকমের আনন্দ পাচ্ছিলাম..মনের ভেতর থেকে কথা গুলো উঠে আসছিলো..ক্ষতি কি যদি বাবু আমায়..ওর নিজের মাকে শারীরিক ভাবে কল্পনা করে সামান্য সুখ পায়....আর আমিও যদি নিজের রাগ রস বের করার সময় নিজের ছেলের সাথে দৈহিক মিলনের কল্পনা করি..তাহলে কি বা ক্ষতি হবে..! এর আগে বহু ইনসেস্ট গল্প পরেছি.. আমার নিজের জীবনেও যে আমি আস্তে আস্তে ইনসেস্ট হয়ে পরছি.. নিজের ছেলের প্রতি তা কল্পনাও করতে পারলাম না. রোজ সকালে বাবু কে ঘুম থেকে ওঠাবার আগে.. ওর ঘরে গিয়ে ওর ঘুমন্ত শরীরের দিকে অনেক্ষণ ধরে তাকিয়ে থাকতাম...ওর পেটানো তরতাজা শরীর ..চওড়া বুক..আর ঘুমন্ত অবস্থায়.. বারমুডার ভেতর দিয়ে.. জেগে থাকা..শক্ত হওয়া লিঙ্গ টা দেখে.. আমি মনে মনে এতটাই উত্তেজিত হতাম.. যে পরক্ষনেই আমায় বাথরুমে দৌড়াতে হত..মৈথুনের জন্য..মনে মনে ভাবতাম ইসঃ আর একবার কি সেদিনের মতো অমন সুযোগ আসবে না..!
সুযোগ টা যে এত তারাতারি আসবে.. ভাবতে পারিনি. পরের উইকেন্ডে আমার স্বামী বললি..ওর কি একটা জরুরি কাজ আছে..২ দিন বাড়ি থাকবে না..গারিতাও সাথে নিয়ে যেতে হবে.. তাই শপিং করে যেতে পারবে না আমাদের নিয়ে..আমি বললাম.. “বেশতো আমি আর বাবুই চলে যাচ্ছি না হয়..”
বাবু বললো ..”হ্যা বাবা.. তুমি বরং আমায় আর মা কে শপিং মলে ছেরে দিয়ে গারি টা নিয়ে যাও.. কি অসুবিধা নেই তো মা..? “ আমার দিকে তাকিয়ে হাসলো বাবু..
আমি আর কথা বলবো..কি ..বেশ বুঝতে পারছি.. উত্তেজিত শুধু আমি একা হইনি..বাবুও একদিন রোজ আমায় নিয়ে কল্পনা করেছে..আর মনে মনে সুযোগ খুজেছে..কবে আমার কাছাকাছি আস্তে পারবে...কোনো রকমে জবাব দিলাম..”হ্যা অসুবিধার আর কি আছে.. কোনো অসুবিধা নেই..”
সারাটা দিন খুব উত্তেজিত হয়ে রইলাম..তারপর থেকে..নিজের অজান্তেই আমার হাত টা বার বার..দু পায়ের ফাকে চলে যাচ্ছিলো.. বার বার বাবুর কথা মনে পরছিলো..আর..শাড়ির উপর দিয়ে জোনির বেদী টা টিপে ধরছিলাম শক্ত করে..আয়নায় নিজের উলঙ্গ শরীরখানকে বার বার দেখছিলাম বাথরুমে দাড়িয়ে..আমার এই শরীরটাকে আমার নিজের সন্তান কল্পনা করে..! ও ওর মাকে আরো কাছে পেতে চায় নিজের শারীরিক কামনাকে চরিতার্থ করার জন্য!
অনেক্ষণ ধরে শপিং করলাম আমরা মা ছেলেতে মিলে..আমি বিশেষ একটা কথা বলছিলাম না বাবুর সাথে.. কিছুটা লজ্জার কারণে আর কিছুটা উত্তেজনার কারণে..শপিং শেষ করে...বেরিয়ে দেখলাম..আগের দিনের মতই রাত ১০ টা বেজে গিয়েছে.. আগের দিনের মতো ছিলো না বাসে..বেশ ফাকা ছিলো. আমি ইচ্ছে করেই সিটে না বসে..পিছনের দিকে দাড়িয়েছিলাম..দেখার ইচ্ছে ছিলো আমার ছেলে কতটা সাহসী হতে হারে ওর মায়ের সাথে মজা যৌন মজা করার জন্য. আর সত্যি বলতে কি, মনে মনে তো আমিও চাইছিলাম যে বাবু কিছু করুক..সেকথা আগেই বলেছি..
বাবু. জানালার ধরে বসে ছিলো... সামনের একটা স্টপেজ আসতেই বাসটা বলতে গেলে ফাকাই হয়ে গেলো প্রায়..নতুন করে উঠলো না কেউ.. কেবল কয়েকজন নিম্নবিত্তের দিনমজুর বা শ্রমিক ধরনের বুড়ো বুড়ি সামনের দিকের সিটে বসে ঘুমে ঢুলছিলো. বাবু মনে হয় এই সুযোগের অপেক্ষাতেই ছিলো..কিচুক্খুন পরেই দেখলাম..ও উঠে আমার পিছনে এসে দাড়ালো.. আস্তে করে বললো...”উফ রাত ১০.৩০ বাজতে চললো..বাস টা আজ এত ধিকির ধিকির করে চলছে.. আমাদের স্টপেজ আস্তে তো আরো অনেক্খ্গন সময় নেবে মনে হচ্ছে..তাই না মা..”
আমি হ্যা বা না কোনো উত্তর দিলাম না চুপচাপ দাড়িয়ে রইলাম..সামনের দিকে মুখ করে দাড়িয়ে রইলাম.. বাবু কিছুক্ষণ অপেক্ষা করে..আমার কোনো উত্তর না পেয়ে..আস্তে আস্তে আমার একদম গা ঘেসে দাড়িয়ে গেলো..আগের দিনের মতন..ওর কোমর টা আমার পাছার সাথে একেবারে লাগিয়ে দিয়ে..
কিচুক্খুন পরেই বুঝতে পারলাম..বাবুর যৌনাঙ্গ টা শক্ত হতে শুরু করেছে..আর আমার পাছার নরম মাংসের সাথে শাড়ির উপর দিয়ে ঘসা খাচ্ছে..বেশ বুঝতে পারলাম বাবু ইচ্ছে করেই ঘসছে..আর ওর যৌনাঙ্গ কে..কাপড় চোপরের উপর দিয়েই..আমার পাছার খাঁজে খাড়া ভাবে ঢুকিয়ে..ঘসা দেওয়ার চেষ্টা করছে আগের দিনের মতন.. আমি আজ ইচ্ছে করেই সিন্থেটিক শাড়ি পরে এসেছিলাম..আর ভেতরে প্যান্টি পরিনি যাতে বাবুর সুবিধে হয়...ওর গরম নিশ্বাস আমার ঘাড়ে আর ব্লাউজের ফাক দিয়ে খোলা পিঠের উপর এসে পরছিলো..এইরকম ভাবে নিজের ছেলের যৌনাঙ্গের ঘর্ষণে আমিও বোধয় উত্তেজিত হয়ে পরছিলাম..কারণ আমি রীতিমতো ঘামতে শুরু করেছি ততক্ষণে ...আমার ব্রা, প্যান্টি, ব্লুজ সব ভিজে উঠছিলো আস্তে আস্তে...পা দুটো সামান্য ফাঁকা করে সামনের দেওয়াল ধরে সামনের দিকে মুখ করে দাড়িয়ে..পাছায় ছেলের যৌনাঙ্গের ঘসা নিচ্ছিলাম..
বাবুও মনে হয় আমার অবস্থাটা বুঝতে পারছিলো..ও ওর হাত দুটো আস্তে আস্তে আমার পাছার উপরে নিয়ে এলো..তারপর আস্তে আস্তে আমার পাচাটা টেপা শুরু করলো..আর টেনে টেনে ধরতে লাগলো..আমি রীতিমতো অবাক হয়ে যাচ্ছিলাম ওর সাহস দেখে..কিন্তু আমার অবস্থা তখন সঙ্গিন..৩৭ বছরের একজন যৌবন সম্পূর্ণা কামার্ত নারী যদি হঠাৎ করে..কোনো সাবলীল পুরুষের শরীরের ছোয়া পায়.. তখন সে বিচার করতে পারে না..যে সেই পুরুষটি তার নিজের স্বামী ছাড়া অন্য কেউ..বা নিজের সন্তান কিনা..
বাবু যদি আমায় বাসের মধে সম্পূর্ণ বিবস্ত্রও করে দিত..তাহলেও বোধহয় ওকে বাধা দিতে পারতাম না আমি.. তাই বাবু..আমায় নিয়ে যা যা করছিলো..আমি মা হয়ে চুপচাপ তার আনন্দ নিচ্ছিলাম..বাবু ততক্ষণে আমার পাছাটা দুহাতে টিপে আর টেনে টেনে.. শাড়ির উপর দিয়েই পাছার খাজ টা বার করে ফেলেছে...আর নিজের শক্ত..ঠাটানো লিঙ্গ টা..শাড়ির উপর দিয়ে আমার পাছার খাঁজে চেপে ধরে..পায়ু ছিদ্রের উপর ঘসা দিতে শুরু করেছে...এবার ও নিজের হাত দুটো সামনে এনে..আস্তে আস্তে আমার পেটের উপর রাখলো..আর পেটের উপির থেকে..শাড়ি টা একটু টেনে ধরে সরিয়ে দিলো..আর আমার তলপেট দুহাতে টিপতে টিপতে..ওর যৌনাঙ্গ টা আমার পাছায় ঘসতে লাগলো..
আমার অবস্থা ততক্ষণে খুব খারাপ হয়ে গিয়েছে...জোনি গহ্বরের ভেতরটা রসে প্যাচ প্যাচ করছে একেবারে..মনে মনে বলছি..”হে ভগবান.. কখন যে বাড়িতে পৌছাবো..বাড়িতে ঢুকেই বাথরুমে দৌড়াতে হবে..মৈথুনের জন্য..বাবু ..সোনা..আরেকটু নিচের দিকে ঘস...তোর মায়ের..জোনি গহ্বরের মুখটায় যেন হাজারটা কালো পিপড়ে কামর দিচ্ছে..তোর মোটা..পুরুষালী লিঙ্গটা ঘসে..তোর মাকে শান্তি দে একটু..তুই কি আমার মনের কথা একটুও বুঝতে পারছিস না শয়তান ছেলে..!”
আমি নিজে থেকেই সামনের দিকে একটু ঝুকে দাড়িয়ে..বাবুর লিঙ্গের সাথে নিজের পাছাটা চেপে ধরেছিলাম.. সামনে ঝুকে চেষ্টা করছিলাম..যাতে ওর জনাঙ্গ টা এভবে উপর নিচে ঘসা দেওয়ার সময়..আমার জোনি গহ্বরের মুখ টা ছুয়ে যায়...বাবুর তখন রীতিমতো পাগলের মতো অবস্থা..কোমরের দুপাশে হাত রেখে..আমার শাড়ি দুহাতে মুঠি করে ধরে..জোরে জোরে ঘষে চলেছে..ওর লিঙ্গটা..শ্বাস ভারী হয়ে এসেছে ওর বুঝতে পারছি..হঠাৎ ও ডান হাতখানা আমার কোমর থেকে তুলে নিলো..আর পরক্ষনেই আমি প্যান্টের জিপ নিচে টানার আওয়াজ পেলাম..সাথে সাথে বুঝতে পারলাম..বাবু কি করতে চলেছে..! আমি এবার বেশ ভয় পেয়ে গেলাম...কারণ পরিস্কার বুঝতে পারলাম..বাবু এবার অতিরিক্ত উত্তেজিত হয়ে..নিজের লিঙ্গটা প্যান্ট এর ভেতর থেকে বার করে.. আমার পাছার খাজে ঘষবে..!..আমি এবার ওকে বাধা দেওয়ার চেষ্টা করলাম পিছন ঘুরে..কিন্তু ও ততক্ষণে পাগল হয়ে গিয়েছে ...বাহাত দিয়ে আমার কোমর টা শক্ত করে জরিয়ে ধরে..আমায় সামনের দেওয়ালের সাথে চেপে ধরে অন্য হাতে.. নিজের লিঙ্গটা আমার পাছার খাজে শাড়ির উপর দিয়ে শক্ত করে চেপে ধরেছে...আমার মুখ দিরে..ওফফফফফ আওয়াজ বেরিয়ে গেলো...বাবু ক্রমশ খ্যাপা সারের মতো ওর ঠাটানো যৌনাঙ্গটা দিয়ে..আমার পায়ু ছিদ্রের উপর গুতো মারছে আর ওর হাতটা কমোর থেকে আস্তে আস্তে নিচের দিকে..আমার দুই থাইয়ের মাঝে নিয়ে যেতে চাইছে..আমি বুঝতে পারলাম ও কি করতে চলেছে..সাথে সাথে ওর হাতটা চেপে ধরলাম আমি শক্ত করে..কিন্তু তখন ওকে কে ঠেকায়!..আমার জোনির্ বেদীটা ও শাড়ির ওপর দিয়ে শক্ত করে খামচে ধরে টিপতে লাগলো..গায়ের জোরে..যেন দুমড়ে মুচরে দেবে..আর তার সাথে.. নিজের যৌনাঙ্গ টা..শাড়ির উপর দিয় আমার পাছার খাজে ঢুকিয়ে জোরে জোরে চাপ দিতে লাগলো..কোমর টা আগে পিছে করে..যেন শাড়ি ভেদ করে ঢুকিয়ে দেবে এখনি. আমি দর দর করে ঘামতে শুরু করেছি ততক্ষণে..চোখ মুখ দিয়ে আগুন বেরোচ্ছে...কান দুটো গরম হয়ে উঠেছে উত্তেজনায়..আর জোনি গহ্বরের ভেতরটা শির শির করছে..জোনির্ মুখে রস চলে এসেছে বুঝতে পারছি..ছেলের হাতের টেপন খেয়ে..কোনরকমে ঠোট কামড়ে ধরে দাড়িয়ে আছি..এমন সময় বাবু একবার খুব জোরে..আমার জোনির্ বেদীটা হাতের মুঠোয় চেপে ধরলো..যেন পিষে ফেলবে..আর কোমরটা একটু পিছিয়ে নিয়ে..ওর শক্ত যৌনাঙ্গটা খাড়া ভাবে আমার পাছার খাঁজে ঢুকিয়ে..সজোরে চাপ মারলো আমার পায়ু ছিদ্রের উপর..আর শক্ত করে ঠেসে ধরে রইলো ...আমার মুখ দিয়ে আআক! ..আওয়াজ বেরিয়ে গেলো..আর পরক্ষনেই আমি আমার পাছার খাঁজে আটকে থাকা সিন্থেটিক শাড়িতে গরম ভেজা ভেজা কিছু অনুভব করলাম..বুঝতে পারলাম..বাবু বীর্যপাত করে ফেলেছে..আমার মুখচোখ লাল হয়ে গেলো..এরকম অবস্থায় আমি রাস্তায় চলবো কি করে..!..সিন্থেটিক শাড়ি পরিস্কার বোঝা যাবে..ভিজে থাকলে..আর বেশ বুঝতে পারছি..বাবু প্রায় আধ কাপের মতো..ঘন আঠালো বীর্য ফেলেছে..ও ততক্ষণে শিথিল হয়ে পরেছে.. নিজের মুখটা আমারে ঘাড়ে রেখে..দুহাত দিয়ে আমার কোমর টা ধরে..জোরে জোরে নিশ্বাস ফেলছে আর হাপাচ্ছে...ওর লিঙ্গটা চত্ব হয়ে আমার পাছার খাঁজে আটকে রয়েছে বুঝতে পারছি..
কিছুক্ষণ পর..ও আমার কানের কাছে মুখ নিয়ে আস্তে করে বললো..” সরি মা..আমি আর পারছিলাম না..তাই.....”
আমি কি যে বলবো..বুঝে উঠতে পারছিলাম না..কোনরকমে নিজের ভ্যানিটি ব্যাগের চেনটা খুলে..রুমাল টা বার করে..ওর হাতে গুজে দিয়ে আস্তে করে বললাম..”পরিস্কার করে দে..নামার সময় হয়ে গিয়েছে আমাদের..”
বাবু যেন হুশ ফিরে পেলো এতক্ষণে..তারাতারি..আমার হাত থেকে রুমালটা নিয়ে...দলা পাকিয়ে..আমার পাছার খাঁজে চেপে ধরে..ঘসে ঘসে আমার শাড়িটা পরস্কার করে দিলো কোনরকমে....তারপর..নিজের লিঙ্গটাও পরিস্কার করে..প্যান্টের ভেতর ঢুকিয়ে..চেন তুলে দিলো.. ভেজা রুমালটা আমার হাতে দিয়ে বললো...”এই নাও..”
আমার এবার একটু রাগ রাগ হচ্ছিলো ..নিজের উপরেও রাগ হচ্ছিলো..কেন..নিজের ছেলেকে উত্তেজনার বশে এতটা প্রশ্রয় দিয়ে ফেললাম..ছিঃ! একটু রাগী গলায় কেটে কেটে বললাম..”আমার আর কোনো প্রয়োজন নেই ওটার ..ফেলে দে..”
বাবু মনে হয় বুঝতে পারলো কিছুটা..তারাতারি ও সরে দাড়ালো আমার থেকে..দেখলাম রুমাল্তাকে নিজের পকেটে ঢুকিয়ে নিলো..আর সিটে গিয়ে চুপচাপ বসে রইলো.. আমি এতক্ষণে সামনের দিকে ঘুরলাম..দেওয়ালে হেলান দিয়ে অন্য দিকে মুখ ঘুরিয়ে দাড়িয়ে রইলাম..লজ্জায় তাকাতে পারছিলাম না বাবুর দিকে..কিছুক্ষণ পর..আমাদের স্টপেজ চলে এলো..মা ছেলেতে নেমে পরলাম দুজনে..





কেমন লাগলো দু-একটা শব্দ হলেও প্লিজ লিখে জানান। আপনাদের মহামূল্যবান মন্তব্যই আমার গল্প শেয়ার করার মূল উদ্দেশ্য। 




হোমপেজ এ যেতে হলে নিচের লিঙ্কে ক্লিক করুনঃ

No comments:

Post a Comment